মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা

উপ-সহকারী কৃষি অফিসারের কার্যালয় কৃষি মন্ত্রণালয় এবং কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অধীন একটি সরকারী সেবা প্রদান কারী প্রতিষ্ঠান। এই কার্যালয় ইউনিয়ন পর্যায়ে সকল ধরনের কৃষকদের তাদের চাহিদা ভিত্তিক কৃষি সম্প্রসারণ সেবা প্রদান করে । সামগ্রিক কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি তথা কৃষি উন্নয়নের লক্ষ্যে বিনামূল্যে কৃষকদের মাঝে কৃষি বিষয়ক পরামর্শ, বীজ, সার ও নতুন নতুন প্রযুক্তি উপজেলা কৃষি অফিসের মাধ্যমে সরবরাহ করে থাকে। বিভিন্ন প্রকল্পের অধীনে বিভিন্ন শ্রেণীর কৃষকদের সমকালীন ও সময় উপযোগী চাষাবাদ প্রযুক্তির উপর প্রশিক্ষণ গ্রহনের ব্যবস্থা করে থাকে। এই কার্যালয়ে দুই জন উপ-সহকারী কৃষি অফিসার সরকারী সেবা প্রদানে নিয়োজিত রয়েছে।উপ-সহকারী কৃষি অফিসারের কার্যালয়  ইউনিয়ন পরিষদে অবস্থিত। কৃষি বিষয়ক যে কোন জরুরী প্রয়োজনে ০১৯৩৮১২১৮১২ ও ০১৯৩৮-৮১১৮৫৩ নম্বরে ফোন করা যেতে পারে।

কি সেবা কিভাবে পাবেন

 

ক্র.নং

 সেবার নাম

সেবা পেতে করনীয়

অসুবিধা সমূহ

সীমাবদ্ধতা

সকল শ্রেণীর কৃষকের জন্য কৃষি বিষয়ক পরামর্শ প্রদান।

কৃষকদের ইউনিয়ন কৃষি অফিস বরাবর লিখিত অথবা মৌখিক আবেদন করতে হবে।

কৃষকদের শিক্ষা ও কৃষি বিষয়ক পর্যাপ্ত জ্ঞানের অভাব।
প্রাথমিক পর্যায়ে কৃষি  বিষয়ক উন্নত প্রযুক্তি সমূহ গ্রহণে ঝুঁকি মনে করা।
নতুন প্রযুক্তি গ্রহণে অনাগ্রহ।
প্রয়োজনীয়  জনবলের  অভাব।

 

কৃষকদের ক্ষেতে প্রদর্শণী স্থাপন।

কৃষকদের ইউনিয়ন কৃষি অফিস বরাবর লিখিত  বা মৌখিক আবেদন করতে হবে। কৃষককে আধুনিক, উন্নত ও নতুন প্রযুক্তি গ্রহনে আগ্রহী হতে হবে। এছাড়া এমন স্থানে জমি থাকতে হবে যেন প্রদর্শণী সকলে দেখতে পারে।

প্রাথমিক পর্যায়ে কৃষি  বিষয়ক উন্নত প্রযুক্তি সমূহ গ্রহণে ঝুঁকি মনে করা।
কৃষকদের শিক্ষা ও কৃষি বিষয়ক পর্যাপ্ত জ্ঞানের অভাব।
সব ধরনের কৃষক এ সুবিধা পায় না।
আর্থিক বরাদ্দের অপর্যাপ্ততা।
স্থনীয় প্রভাবমুক্ত থেকে যথাসময়ে প্রনয়নে সমস্যা।

সব ধরনের কৃষক এ সুবিধা পায় না।

কৃষকদের প্রশিক্ষণ গ্রহনের ব্যবস্থা করা।

কৃষকদের ইউনিয়ন কৃষি অফিস বরাবর লিখিত বা মৌখিক আবেদন করতে হবে। কৃষককে আধুনিক, উন্নত ও নতুন প্রযুক্তি বিষয়ে প্রশিক্ষণ গ্রহনে আগ্রহী হতে হবে।

প্রশিক্ষণে অংশ গ্রহণে কৃষকের সময়ের অভাব।
প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত প্রযুক্তি প্রয়োগে কৃষকের আর্থিক অস্বচ্ছলতা।
অপ্রতুল প্রশিক্ষণ ভাতা।
কৃষকদের প্রশিক্ষণের জন্য পর্যাপ্ত বরাদ্দের স্বল্পতা।
হাতে কলমে শিক্ষাদানে প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ সামগ্রীর স্বল্পতা।
উচ্চতর প্র্রশিক্ষণ প্রাপ্ত দক্ষ জনবলের অভাব।

 

মাটির স্বাস্হ্য পরীক্ষা

সঠিক ভাবে মাটির নমূনা সংগ্রহ করে ইউনিয়ন কৃষি অফিসে জমা দিতে হবে।

কৃষকদের মাটির স্বাস্হ্য রক্ষা বিষয়ক কারিগরী জ্ঞানের অভাব।
কৃষকদের উৎসাহ কম।

 সয়েল টেষ্টিং কীট থাকা সাপেক্ষে মাটি পরীক্ষা করা হয়।


Share with :

Facebook Twitter